Home | Webmail | FAQ | Contact

 

Menu

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: ’৪৭-এর পাকিস্তান নয়, বাঙালির জাতি-রাষ্ট্র গঠনই ছিল বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রচিন্তা - বাংলা একাডেমির আলোচনা সভায় ড. হারুন-অর-রশিদ

তারিখ: ১৫.৮.২০১৭

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

’৪৭-এর পাকিস্তান নয়, বাঙালির জাতি-রাষ্ট্র গঠনই ছিল বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রচিন্তা
                                                          - বাংলা একাডেমির আলোচনা সভায় ড. হারুন-অর-রশিদ


আজ ১৫ই আগস্ট ২০১৭ জাতীয় শোকদিবস ও বঙ্গবন্ধুর ৪২তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে বিকেল ৪টায় বাংলা একাডেমির সভাপতি ও এমেরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান-এর সভাপতিত্বে আব্দুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে একক বক্তৃতার আয়োজন করা হয়। বক্তা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ। তিনি “বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রচিন্তা ও রাজনৈতিক দর্শন : সমসাময়িক ও আজকের প্রাসঙ্গিকতা” শিরোনামে তাঁর প্রবন্ধে বঙ্গবন্ধুৃর রাষ্ট্রচিন্তা সম্বন্ধে বলেন, “মুসলিম লীগ ও পাকিস্তান আন্দোলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সক্রিয় ভূমিকা পালন করলেও ১৯৪৭ সালে প্রতিষ্ঠিত পাকিস্তান তাঁর রাষ্ট্রভাবনা ছিল না। ভারত বিভাগ-পূর্ব ১৯৪০-এর লাহোর প্রস্তাবের বহুমাত্রিক রাষ্ট্রধারণা অনুযায়ী ভারতের উত্তর-পূর্ব অঞ্চল (বর্তমান বাংলাদেশ এবং তৎসংলগ্ন এলাকা)-এ একটি স্বতন্ত্র স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠাই ছিল তাঁর রাষ্ট্রভাবনা। তাঁরই নেতৃত্বে দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রাম শেষে ১৯৭১ সালের সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যূদয়ের সঙ্গে তাঁর ঐ রাষ্ট্রচিন্তা বাস্তবে রূপ লাভ করে।” বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন সম্বন্ধে ড. হারুন-অর-রশিদ বলেন, “বাঙালিসত্তা, অসাম্প্রদায়িকতার আদর্শ, গণতন্ত্র, নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতি, সংবিধান মনষ্কতা, নীতি-আদর্শ ও ত্যাগের রাজনীতি, শোষণমুক্তি অর্থে সমাজতন্ত্র, ‘দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো’, নারীর মর্যাদা-অধিকার ও ক্ষমতায়ন, সাম্রাজ্যবাদ বিরোধিতা, বিশ্বশান্তি ইত্যাদি বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শনের গুরুত্বপূর্ণ দিক। বঙ্গবন্ধু ছিলেন বাঙালির শ্বাশত সমন্বয়, সমতা ও সম্প্রীতির ঐতিহ্য ও ধারা, অন্যকথায়, সংশ্লেষনাত্মক সংস্কৃতির সার্থক প্রতিনিধি। রাষ্ট্র পরিচালনার চার মূলনীতি- জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতাসহ ৭২-এর সংবিধানে আমরা বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শনের সামগ্রিক পরিচয় পাই। এককথায়, বঙ্গবন্ধু শুধু প্রাসঙ্গিকই নয়, বাঙালির স্বাধীন অস্তিত্ব, জাতীয় সংহতি ও রাষ্ট্রের ভবিষ্যৎ উন্নয়ন-অগ্রগতির ক্ষেত্রেও তাঁর দর্শন বা শিক্ষা অনন্তকাল ধরে জাতির জন্য আবশ্যকীয় হয়ে থাকবে।” অনুষ্ঠানে প্রারম্ভিক বক্তব্য রাখেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক জনাব শামসুজ্জামান খান।

ডাউনলোড (Download)


(মোঃ ফয়জুল করিম)
পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত)
জনসংযোগ, তথ্য ও পরামর্শ দফতর
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

Last Updated on Tuesday, 15 August 2017 12:41

Go to top